নারীকে পিষে মেরে টেনে নেওয়া গাড়িটি চালাচ্ছিলেন ঢাবির সাবেক শিক্ষক

আজ বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) এলাকায় প্রাইভেটকারের নিচে আটকে যাওয়া নারীকে টেনে নেওয়া গাড়িটি চালাচ্ছিলেন ঢাবির সাবেক শিক্ষক মোহাম্মদ আজহার জাফর শাহ। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। ২০১৮ সালে তাকে চাকরিচ্যুত করেছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আজ শুক্রবার ২ ডিসেম্বর বিকেল ৩টার দিকে ঢাবির চারুকলা অনুষদের সামনে জাফর শাহের প্রাইভেট কারের ধাক্কায় সামনের মোটরসাইকেল থেকে পড়ে যান ওই নারী।

এ বিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ওই নারী প্রাইভেট কারের বাম্পারে আটকে যান। তখন গাড়ি না থামিয়ে দ্রুতগতিতে চালিয়ে যান চালক। তাকে ধাওয়া করে নীলক্ষেত মোড়ের কাছে ধরে ফেলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এ সময় ওই নারীকে জীবিত উদ্ধার করা হলেও ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়।

জানা যায়, রুবিনা আক্তার (৪৫) নামের ওই নারী রাজধানীর তেজগাঁও এলাকার বাসিন্দা। দেবরের মোটরসাইকেলে চড়ে হাজারীবাগে বাবার বাসায় ফিরছিলেন তিনি। প্রাইভেট কার আটকে ওই নারীকে উদ্ধারের সময় গাড়ির চালককে বেদম মারধর করেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। এ সময় তিনি নিজেকে ঢাবির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আজহার জাফর শাহ বলে পরিচয় দিয়েছিলেন।

বর্তমানে ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পঞ্চাশোর্ধ্ব জাফর শাহ। তার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, ক্লাসসহ একাডেমিক কার্যক্রমে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগে ২০১৮ সালে আজহার জাফর শাহকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চাকরিচ্যুত করা হয়। তার বাসা কোথায়, তা জানা নেই। এ ঘটনায় আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেবে।

এর আগে উত্তেজিত জনতা গাড়িচালককে গণপিটুনি দেয় এবং গাড়িটি ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে চালককে উদ্ধার করে এবং হাসপাতালে নিয়ে যায়। জানা গেছে, প্রাইভেটকারচালক ছিলেন ঢাবির সাবেক শিক্ষক আজহার জাফর শাহ।