দেশকে ভালোবেসে প্রতি মাসে ১৭ লাখ টাকার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন জামাল ভূঁইয়া

জামাল ভূঁইয়া ডেনমার্কের উন্নত জীবন ছেড়ে নাড়ির টানে চলে আসেন বাংলাদেশে। এখন তো বাংলাদেশের ফুটবলের পোস্টারবয় জামাল ভূঁইয়া। জাতীয় দলের নেতাও এ মিডফিল্ডার। বিদেশের মাটিতে লাল-সবুজের জার্সি গায়ে জড়ালে অনেকের চোখেই আলাদাভাবে পড়েন জামাল। ব্যতিক্রম হয়নি জাতীয় দলের ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়া সফরেও।

দুই দেশের দুটি ক্লাবের প্রস্তাব পেলেও ফিরিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশের প্রতি ভালোবাসা আছে বলেই। ইন্দোনেশিয়ার লিগ ওয়ানের ক্লাব পার্সিয়া জাকার্তা তো বড় অঙ্কের প্রস্তাবও দিয়েছিল জামালকে। সাইফ স্পোর্টিং ক্লাব ছেড়ে তখন শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের সঙ্গে কথাবার্তাও প্রায় চূড়ান্ত করে ফেলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। তবে শেখ রাসেল যে পরিমাণ অর্থ দিচ্ছে, পার্সিয়া জাকার্তা ক্লাব থেকে প্রস্তাবটিও একই ছিল।

যে কারণে ইন্দোনেশিয়ার ক্লাবের প্রস্তাবটি ফিরিয়ে দিয়েছিলেন তিনি, ‘আমার কাছে মনে হয়েছে, বাংলাদেশের ক্লাবই ভালো। ইন্দোনেশিয়ার ক্লাবের মতোই টাকার পরিমাণ এখানে। সবচেয়ে বড় কথা হলো এখানে আমি ৩-৪টি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত আছি। যে কারণে আমি তাদের প্রস্তাবটি ফিরিয়ে দিয়েছিলাম।’

শুধু ইন্দোনেশিয়ারই নয়, মালয়েশিয়ার এক ক্লাব থেকে বড় অঙ্কের প্রস্তাবও পেয়েছিলেন জামাল। তার সঙ্গে এক এজেন্ট যোগাযোগ করেছিল। প্রতি মাসে ১৫ হাজার ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ১৭ লাখ ৫০ হাজার) করে বেতন দেবে বলে জানিয়েছিল মালয়েশিয়ান ক্লাবটি। কিন্তু প্রস্তাবের দেশেই খেলবেন বলে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক চুক্তি সেরে ফেলেন জামাল।