ঠান্ডা মাথার খুনে অধিনায়ক আকবর আলী

যুব বিশ্বকাপে ইতিহাস রচনা করেছে অধিনায়ক আকবর আলীর দল। প্রথমবারের মত টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠে ছিনিয়ে এনেছে স্বপ্নের শিরোপা। দল হিসেবে বাংলাদেশ যতটা প্রশংসিত হচ্ছে, ঠিক ততটা প্রশংসা কুড়াচ্ছেন আকবরও। ঠাণ্ডা মাথার খুনে অধিনায়কত্বে মন জয় করেছেন গোটা ক্রিকেট বিশ্বের।

এখন আকবর আলী, বয়স কতইবা হবে আর! সবে ১৮ ছাড়িয়েছে। এই বয়সে গোটা একটা দেশের ভার কাঁধে তুলে নিয়েছেন। নিজের যোগ্যতার পূর্ণ ব্যবহার দেখিয়ে দেশের লাল-সবুজের পতাকাটাকে তুলে ধরেছেন একদম শীর্ষে। সেই আকবরের হাত ধরেই ইতিহাসে বাংলাদেশ। নামের পাশে জুটেছে বিশ্বসেরার খেতাব।

Advertisement

এদিকে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব নিয়ে প্রশ্ন করা হলে আকবর বলেন, ‘অধিনায়কত্বটা আমি উপভোগ করি। বাড়তি চাপ হিসেবে নিতে চাই না। যখন আমি মাঠে থাকি তখন চিন্তা করি যে যতটা (অধিনায়কত্ব) উপভোগ করা যায়। উইকেটরক্ষক এবং অধিনায়কত্বের দায়িত্ব, দুটোই আমি উপভোগ করি মাঠের মধ্যে। বাড়তি চাপ হিসেবে নিই না।’

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘যেখানেই অধিনায়কত্ব করেছি বাড়তি দায়িত্ব হিসেবে নিতে চাইনি। সবসময় চিন্তা করি প্রতিপক্ষকে কিভাবে পরিসংখ্যান দিয়ে ধরে রাখা যায়। আমি যখন উইকেট কিপিং করি এবং অধিনায়কত্ব না করি, তখনও চেষ্টা করি খেলাটাকে ভালোভাবে বোঝার। সবসময় মাথার মধ্যে কাজ করতে থাকে খেলাটাকে বোঝার জন্য। তো অধিনায়ক থাকি আর না থাকি, সেটা আমাকে প্রভাবিত করে না। সবসময় চেষ্টা করি খেলাটাকে বোঝার।’

ভারতের বিপক্ষে মাথা ঠাণ্ডা রেখে করে দেখালেন আকবর। ফাইনালে ১৭৮ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১০২ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে যখন পরাজয়ের শঙ্কায় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। কিন্তু ঠাণ্ডা মাথার নেতৃত্বগুণেই শেষ হাসি বাংলাদেশের। প্রথমবারের মত বিশ্বকাপ জয় লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের, হোকনা সে অনূর্ধ্ব-১৯।