তাবলিগের ১২ বাংলাদেশির বিরুদ্ধে ভারতে মামলা

1003

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ভারতের দিল্লির নিজামউদ্দিনে তাবলিগ জামাতের মারকাজ মসজিদে ইজতেমায় অংশ নিয়েছিলেন শত শত মুসুল্লি। বিশ্বের ২০টি দেশের নাগরিক অংশ নিয়েছিলেন বলেই জানিয়েছে দিল্লি পুলিশ।

সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যে ইজতেমা করায় তাবলিগ জামাত ব্যাপক সমালোচিত হয়েছে। এদিকে ইজতেমায় অংশ নিয়ে গত দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে উত্তরপ্রদেশের শামলি জেলার একটি তাবলিগ মসজিদে অবস্থান করছিলেন ১২ বাংলাদেশি।

তাদের বিরুদ্ধে ‘ফরেনার্স অ্যাক্টে’ মামলা করেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের পুলিশ। সেই ১২ জনের মধ্যে দুইজন করোনায় আক্রান্ত বলেই জানিয়েছেন শামলির পুলিশ প্রধান ভিনিত জয়সোয়াল।

তিনি বলেন, ‘পর্যটক ভিসা নিয়ে ভারতে প্রবেশ করার পর এই বিদেশী নাগরিকরা বেআইনিভাবে ধর্মীয় কর্মকান্ডে অংশ নিয়েছেন, এ কারণেই তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে। যে দুজন বাংলাদেশী নাগরিক এর মধ্যেই করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন, তাদের এখন রাখা হয়েছে ঝিনঝিনা-র একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের আইসোলেশন ওয়ার্ডে। ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিকে বিশেষভাবে করোনাভাইরাস আক্রান্তদের জন্যই প্রস্তুত করা হয়েছে।’

শামলির জেলা প্রশাসক যশজিৎ কাউর বলেন, ‘তাবলিগের এই দলটি ভেসানি গ্রামের এক মসজিদে আশ্রয় নিয়েছিল। দিল্লির মারকাজ নিয়ে সারা দেশ জুড়ে হইচই শুরু হওয়ার পর প্রশাসন ওই মসজিদে খোঁজ নিতে গেলে এদের সন্ধান পাওয়া যায়।

আমরা এদের সবাইকে কোয়ারেন্টিনে রাখার ব্যবস্থা করি এবং তাদের দেহ থেকে স্যাম্পল নিয়ে তা করোনাভাইরাস টেস্টের জন্য পাঠানো হয়। সেই পরীক্ষার ফলেই অন্তত দুজন বাংলাদেশী ও একজন ভারতীয় নাগরিক করোনা-আক্রান্ত হিসেবে আমরা নিশ্চিত হয়েছি।’