Home খেলাধুলা ১৫৫ মিলিয়ন হাতে আছে রিয়ালের

১৫৫ মিলিয়ন হাতে আছে রিয়ালের

আর মাত্র ৩ দিন আছে ট্রান্সফারের। সব মিলিয়ে দিন হিসেবে ৩ দিন হলেও ঘন্টা হিসেবে ৭২ ঘন্টা পুরোটা নেই। কিন্তু থামেনি ট্রান্সফারের জল্পনা। এখনো যেন এবারের ট্রান্সফারের সবচেয়ে বড় মাছটাই অধরা রয়ে গেছে।

নেইমারকে কেনার জন্য বার্সালোনা একের পর এক অফার করেই যাচ্ছে। কিন্তু কোনটাই মন মত হচ্ছেনা পিএসজির। কেননা, পিএসজির চাই নগদ টাকা। এছাড়াও পিএসজি ১৩০ মিলিয়ন ও সাথে তিনজন খেলোয়াড়ের প্রস্তাব দিয়েছিল যা বার্সালোনা রিজেক্ট করে দিয়েছে।

রিয়াল মাদ্রিদের এবার ট্রান্সফার বাজারে আগুণ ঝড়ানোর কথা ছিল। তেমনটাই শোনা যাচ্ছিল ট্রান্সফার মৌসুমের শুরুতে। কিন্তু তেমন আগুণ ছড়ায়নি তারা। প্লেয়ার কিনেছে, কিন্তু দরদাম বা যুদ্ধে গিয়ে কোন প্লেয়ার কিনেনি তারা।

মেন্ডি, জোভিক, মিলিটাওদের সহজেই পেয়ে গেছে রিয়াল মাদ্রিদ। হ্যাজার্ডও এসেছে সহজেই। কোন ঝামেলা হয়নি তাদের খেলোয়াড় কেনার জন্য। কিন্তু এখনো যেন একটি অপূর্ণতা তাদের আছেই। সেটা হল আক্রমন ভাগে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর আভাব পূরণ করার মত খেলোয়াড় এখনো তারা কিনেনি।

নেইমারকেই অনেকে রোনালদোর শূন্যস্থানে যোগ্য মনে করছে। কিন্তু সেদিকে এখনো নিষ্প্রভ রিয়াল মাদ্রিদ। রিয়াল কোচ জিদানেরও পছন্দের তালিকায় নেই নেইমার।

এদিকে বার্সালোনা এবং পিএসজির একের পর এক প্রস্তাব রিজেক্ট হওয়ায় বা তাদের মধ্যে কোন চুক্তি না হওয়ায় রিয়াল মাদ্রিদের সুযোগ ছিল সেখানে জাল ফেলার। কিন্তু রিয়াল কোচের অনাগ্রহ এবং নেইমারেরও বার্সায় যাওয়ার ইচ্ছার কারণে হচ্ছেনা সেটা।

রিয়াল মাদ্রিদের হাতে এখনো ১৫৫ মিলিয়ন ইউরো আছে। এই ১৫৫ মিলিয়ন ইউরো তারা এই ট্রান্সফারে খরচ করতে পারবে চোখ বন্ধ করেই। আর এই টাকা দিয়েই জিনেদিন জিদান চাচ্ছে পল পগবাকে যেন কিনে রিয়াল মাদ্রিদ। তবে নেইমার যে রিয়ালের আগ্রহে নেই এমনটা নয়। সুযোগ পেলে তাকেও কিনতে পারে রিয়াল।

ট্রান্সফারের ডেডলাইনে অর্থাৎ শেষ দিনে এর আগেও প্লেয়ার কেনার ইতিহাস রয়েছে রিয়ালের। লুকা মড্রিচ, গ্যারেথ বেল কিংবা রোনালদো লিমাকে কেনার উদাহরণ রয়েছে ১৩ বারের ইউরোপ চ্যাম্পিয়নদের।

পগবাকে কিনতে হলে রিয়ালকে গুনতে হবে ২০০ মিলিয়ন ইউরো। এই মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে ম্যানইউ। নেইমারকে কেনাও আপাতত অসম্ভব বলেই মনে হচ্ছে। কেননা, নেইমারকে কিনলে প্রায় ৫০০ মিলিয়নের হিসাব গুনতে হবে রিয়ালকে বেতন ও ট্রান্সফার ফি মিলিয়ে। তাছাড়া রিয়াল মাদ্রিদ যেটা আশা করেছিল- হামেস, বেল, ইসকোদের বিক্রি করা নিয়ে সেটাও না হওয়ায় নেইমারের আসা অনেকটাই অসম্ভব বলেই মনে হচ্ছে।

এর বাইরে ক্রিশ্চিয়ান এরিকশন, ভ্যান ডি বেকরা এখনো আছে রিয়ালের টেবিলে। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত এই ১৫৫ মিলিয়ন ইউরো কার পেছনে খরচ করে রিয়াল মাদ্রিদ।