Home আইন-আদালত একেকজন একেক রকম জিকির করতে পারেন, এতে আপনার সমস্যা কীঃ বিচারক

একেকজন একেক রকম জিকির করতে পারেন, এতে আপনার সমস্যা কীঃ বিচারক

মূল্যবোধ ও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগে বিতর্কিত বক্তা ও দাওয়াতে ইমানি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মুফতি মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন আত-তাহেরীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

রোববার বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনাল আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালতে এ মামলার আবেদন করেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির কার্যকরী সদস্য মো. ইব্রাহিম খলিল।

বেলা পৌনে ২টায় আদালতের পেশকার মামলাটি বিচারকের সামনে উপস্থাপন করেন। এর পর বিচারক ফৌজদারি কার্যবিধির ২০০ ধারা মোতাবেক বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করেন।

জবানবন্দিতে বাদী তাহেরির ইসলামকে ব্যাঙ্গ করার সব কথা তুলে ধরেন তিনি বলেন ‘খান, ঢেলে দেই,’ যা সম্পূর্ণ অশ্লীল শব্দ।

এবং তাহেরি ওয়াজে বলেন, ‘ইউনিভার্সিটির কিছু মাইয়া আছে হেরা মডেলিং করে তোমরার কপালে বেহেশত নেই। এ বক্তব্য গোটা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে অসন্তোষ বিরাজ করছে। কে বেহেশতে যাবে আর কে যাবে না, সেটি একমাত্র ধর্ম অনুযায়ী আল্লাহই জানেন।

বাদী আরও বলেন, তাহেরীর ‘বসেন বসেন বইসা যান, ঢেলে দেই’ এসব বাক্য ওয়াজে ব্যবহার করে তিনি ইসলাম ধর্মকে ব্যঙ্গ করেছেন। জিকিরের সময় এ রকম শব্দ উচ্চারণ ইসলামের কোথাও উল্লেখ নেই

বাদীর জবানবন্দি শুনে বিচারক বাদীকে বলেন, আসামির ওয়াজে আপনার কি মূল্যবোধে আঘাত হেনেছে? জবাবে বাদী বলেন, হ্যাঁ, আমি একজন মুসলমান হিসেবে আসামি আমার ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত এনেছে।

বিচারক বাদীকে আবারও বলেন, একেকজন একেক রকম জিকির করতে পারেন, এতে আপনার সমস্যা কী? বিচারক আরও বলেন, আপনার মামলার কারণে তাহেরী আরও উড়বে।

আপনি কোতোয়ালি থানায় মামলা করতে গেছেন, সেখানে পুলিশ ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাতের কোনো প্রমাণ পায়নি, বিধায় মামলা নেয়নি।

এর পর বিচারক বাদীর কাছ থেকে পেনড্রাইভ (পেনড্রাইভে ওয়াজের ভিডিও) রেখে দিয়ে মামলা আমলে নেবেন কিনা, সে বিষয়ে আদেশ পরে দেবেন বলে জানান।